October 16, 2019

চাকুরির ইন্টারভিউতে সবচেয়ে কমন ৭টি প্রশ্ন

ছোট হোক বা বড় হোক চাকুরিতে ইন্টারভিউ আমাদের দিতেই হয়। ইন্টারভিউ বোর্ডে গিয়ে আমরা এমন কিছু কমন প্রশ্নের সম্মুক্ষিন হই যার উত্তর জানা থাকলেও তখন ভুলে যাই। আসুন আজ আমরা সেই কমন ৭িটি প্রশ্ন এবং এর উত্তর জানবো যা আপনার চাকুরিতে করা হবেই।

১। আপনার বর্তমান চাকরীর কি পছন্দ বা অপছন্দ করেন?

এই প্রশ্নটি করে প্রশ্নকর্তা কিছুটা সংকুচিত হয়ে যেতে পারেন এই ভেবে যে আপনি না বোধক উত্তর দিয়ে তার ফাঁদে পা দিচ্ছেন কিনা । তিনি আপনার কাছে পজিটিভ উত্তর-ই চাচ্ছেন। যদি আপনার বর্তমান কোম্পানি টর্চার চেম্বার ও হয় তবুও তাকে তা বলবেন না। এভাবে উত্তর দিতে পারেন , “আমি আসলে চাকরি খুঁজছিলাম না এবং বর্তমান চাকরিতে আমি খুব ভালো করছি। আমি সেখানকার ট্রেনিং এবং সংস্কৃতি খুব পছন্দ করি। আমাদের পণ্য এবং সার্ভিস অসাধারণ। আমার বস অনেক সাপোর্টিভ এবং ভালো শিক্ষক। কিন্তু কোম্পানিটি ছোট এবং আমার বিকাশের সুযোগ কম”। ( আপনার আগের কোম্পানি বড় হলে বলতে পারেন “আমি একটি ছোট কোম্পানি খুজছি, যেখানে আমি বড় পার্থক্য এনে দিতে পারব”।

২। আপনার কাজের কোন অংশটি আপনি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মনে করেন?

ইন্টারভিউ এর প্রেসারে কিংবা আগের জব এ খারাপ অভিজ্ঞতার কারণে অনেক ক্যান্ডিডেটই ভাবেন তাদের কাজ গুরুত্বপূর্ন ছিল না কিংবা তাড়াহুড়ো করে অপ্রয়োজনীয় দক্ষতার কথা বলে ফেলেন। সাবধান থাকুন। আপনার সামগ্রিক ইমেজ এর কথা মাথায় রেখে আপনার চরিত্রের পজিটিভ দিক গুলো তুলে ধরুন। মনে রাখবেন, আপনি এমন একজন বিজনেস ম্যানেজার এর ইমেজ তৈরি করতে চান যে সুনিপুণভাবে বিজনেস চালাতে সক্ষম। উত্তরটি এভাবে চেস্টা করে দেখতে পারেন, “আমার বুদ্ধিদীপ্তভাবে সময় ব্যবস্থাপনার ক্ষমতা। আমি প্রতিদিন গুরুত্বের ক্রমানুযায়ী কিছু গোল সেট করি। এবং সেগুলো পূরন না হওয়া পর্যন্ত সব অনুকূলতা এড়িয়ে কাজটি শেষ করার প্রচেষ্টায় থাকি”।

সেই সাথে আপনার কিছু ইম্প্রেসিভ এচিভমেন্ট এর কথা তুলে ধরতে প্রস্তুত থাকুন।

৩। আপনার নেতৃত্বের গুণাবলি সম্পর্কে কিছু বলুন।

এক্ষেত্রে আপনি যে মানুষকে বোঝাতে,তাদের কাছ থেকে ভালো ব্যবহার পেতে ,এবং যেকোন ডিসিশন নেবার পর যথার্থ অ্যাকশান নিতে সমর্থ সেটা তাদের বোঝান। আপনার বর্ণনাতে “মানুষকে প্রভাবিত করতে পারা,উদ্বুব্ধ করতে পারা, নেতৃত্ব দেয়া, অন্যদের ক্ষমতাশালী করতে পারা, নেগোশিয়েট করতে পারা, পজিটিভ পদক্ষেপ নেয়া, সুযোগ এর সৃষ্টি করা” এই জিনিসগুলো তুলে ধরতে পারেন।

৪।আপনি কিভাবে মেধার পরিচালনা করেন এবং বিকশিত হবার সুযোগ করে দেন?

এটা হল আপনি কিভাবে অন্যদের ম্যানেজ করেন তা জিজ্ঞেস করার আরেকটি পন্থা। আপনি বলুন আপনার অধঃতন যারা আছেন তাদের সাথে নিজে অন্যদের কাছে যেমন ব্যবহার আশা করেন তেমন ব্যবহার ই করেন। আপনি আপনার পরিচালনায় পজিটিভ ক্ষেত্রে পুরস্কার দেয়া এবং সময়মত ফলাফল পেতে পছন্দ করেন। শেখানোর জন্যে আপনি যে সবসময় ই আগ্রহী সেটা তুলে ধরুন। শেষ করুন এমন কারো উদাহরণ দিয়ে যাকে আপনি চাকরি দিয়েছেন,ট্রেইন করেছেন এবং পরে সে পদোন্নতি পেয়েছে।

৫। আপনার সবচেয়ে বড় অর্জন কি?

এখানে প্রশ্নকর্তা কি বিজনেস লাইফ নাকি পার্সোনাল লাইফ বোঝাচ্ছেন? জিজ্ঞেস করুন। যদি বিজনেস হয় তাহলে বেশ। আপনার মেজর প্রমোশন যা আপনার কঠোর পরিশ্রম এবং ডেডিকেশন এর ফলে এসেছে সেটির কথা তুলে ধরুন। যদি পার্সোনাল এবং বিজনেস লাইফ দুটোর কথাই বলা হয় তাহলে বিজনেস লাইফ ই বেছে নিন। মনে রাখবেন, আপনি একটি প্রফেশনাল ইন্টারভিউ দিতে এসেছেন। আপনার বাচ্চার জন্ম আপনার জীবনে সবচেয়ে বড় অর্জন সেটা অবশ্যই সত্যি,কিন্তু এই ক্ষেত্রে তার উল্লেখ করবেন না।

৬। আপনার সবচেয়ে বড় শক্তি এবং দুর্বলতা কী?

এটি সবচেয়ে বেশি জিজ্ঞাসিত ইন্টারভিউ কোশ্চেনগুলোর একটি এবং সবচেয়ে চ্যালেঞ্জিংও বটে। প্রশ্নের প্রথম অংশটির উত্তর দেয়া অপেক্ষাকৃত সহজ হলেও পরের অংশটি জীবন্ত ল্যান্ডমাইন, যদি না আপনি সতর্ক হন। কোম্পানি সাধারণত এমন কাউকে খোঁজে যারা তিনটি কাজ ভালভাবে করতে পারে।

ক। আয় বাড়ানো

খ। টাকা বাঁচানো

গ। সময় বাঁচানো

দুর্বলতার প্রশ্নটির উত্তর দেবার সময় আপনার বৈশিষ্ট্যগত ত্রুটির কথা পরিহার করুন। দুর্বলতাটি আপনার দক্ষতা রিলেটেড হলে ভালো হয়। যেমন উত্তরটি এমন হতে পারে- “আমি যখন শুরু করেছিলাম তখন আমার পাওয়ার পয়েন্ট এ দক্ষতা ছিল না। কিন্তু একটি ভালো বইয়ের সাহায্য নিয়ে আমি আমার দুর্বলতাটি দূর করতে পেরেছি।”

আরেকটি ভালো আইডিয়া হচ্ছে দূর্বলতার ছদ্মবেশে নিজের শক্তির দিকটাই তুলে ধরা। যেমন- “আমি আমার কাজ সম্পর্কে প্যাশনেট এবং যেকোন কাজে আমি নিজের সম্পূর্ণ্টাই দেই। তো মাঝে মধ্যে আমি যখন অন্যদের অলস সময় কাটাতে দেখি, তখন হতাশ হই”।

৭। আপনি কতদিন আমাদের কোম্পানির সাথে থাকতে চান?

এটি একটি ভালো প্রশ্ন। এর মানে হচ্ছে প্রশ্নকর্তা আপনাকে জবটি দেবার কথা ভাবছেন। কিন্তু এটি ট্রিকি হতে পারে। আপনি ভাবতে পারেন প্রশ্নকর্তা ভাবছেন আপনি অল্পসময় পরই চলে যাবেন কিনা। টোপটি গিলবেন না। বল প্রশ্নকর্তার কোর্টে ফেরত পাঠান এভাবে উত্তর দিয়ে, “আমি এই কোম্পানিতে খুব ভাল ক্যারিয়ার গড়ার ব্যাপারে আশাবাদী। আমি পথনির্দেশনায় ভালো সাড়া দেই এবং সবসময়ই নতুন কিছু শিখতে চাই। আমি সাফল্য বলতে বোঝাই নতুন সুযোগ এলে তার জন্যে প্রস্তুত থাকা। আপনার কি মনে হয় কতদিন আমি এখানে সে চ্যালেঞ্জ এর সম্মুখীন হব?”